‘তিন তালাকের’ মাধ্যমে বিয়ে বিচ্ছেদের চেষ্টার জন্য স্বামীর তিন বছরের সাজার প্রস্তাব রেখে ভারতে নতুন একটি আইনের খসড়া তৈরি করা হচ্ছে।

মুসলিমদের মধ্যে ‘তিন তালাক’ বা তাৎক্ষণিক তালাকের এই প্রথার প্রচলন রয়েছে। এতে স্বামী মুখে তিনবার ‘তালাক’ শব্দটি উচ্চারণ করে অথবা ইমেইল বা টেক্সট মেসেজে লিখে পাঠিয়েই স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক ভেঙে ফেলতে পারে।

গত আগস্টে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট এই ‘তিন তালাক’ প্রথাকে অবৈধ ঘোষণা করে। তবে কর্মকর্তারা বলছেন, সুপ্রিম কোর্ট অবৈধ ঘোষণা করলেও ‘তিন তালাক’ বন্ধ হয়নি।

আর এ কারণেই ভারতে এখন তিন তালাকের জন্য স্বামীর তিন বছরের সাজা, জরিমানা এবং এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত স্ত্রীর জন্য ক্ষতিপূরণের প্রস্তাব রেখে ভারতে নতুন একটি আইনের খসড়া প্রস্তুত করা হচ্ছে বলে দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা ‘প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া’র (পিটিআই) বরাত দিয়ে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘মুসলিম উইমেন প্রটেকশন অব রাইটস অন ম্যারেজ বিল’টি মতামতের জন্য এখন আঞ্চলিক সরকারগুলোর কাছে পাঠানো হচ্ছে। এই আইনে সুস্পষ্টভাবে ‘তিন তালাক’ নিষিদ্ধ করার বিধান থাকবে। এছাড়াও স্ত্রীর ভরণপোষণ এবং সন্তানদের লালন-পালনের দায়িত্বের বিষয়েও সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকবে।

ভারতীয় এক কর্মকর্তা জানান, স্বামী যদি স্ত্রীকে ঘর ছেড়ে চলে যেতে বলেন, তখন যেন স্ত্রীর আইনি সুরক্ষা থাকে, সেজন্যেই এসব বিধান রাখা হচ্ছে। এছাড়া যে খসড়াটি তৈরি করা হয়েছে, তাতে স্বামীর জামিনের কোনো বিধান রাখা হয়নি।

চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে শুরু হতে যাওয়া ভারতীয় পার্লামেন্টের শীতকালীন অধিবেশনে এই বিলটি পর্যালোচনা করা হতে পারে।

‘তিন তালাক’ প্রথা যেসব দেশে এখনও টিকে আছে ভারত তাদের অন্যতম। পাঁচজন মুসলিম নারী এই প্রথাকে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন দেশটির আদালতে। তাদের মামলাতেই ভারতের সুপ্রিম কোর্ট তিন তালাক প্রথাকে বাতিলের রায় দেয়।