স্পোর্টস রিপোর্ট ::
গুলশানের সংবাদ সম্মেলন শেষে নিজেদের মধ্যে আলোচনায় বসেন ক্রিকেটাররা। সেখানেই বোর্ডের সঙ্গে আলোচনার সিদ্ধান্ত নেন তারা। তারই ধারাবাহিকতা মিরপুরে বিসিবিতে যান সাকিব-তামিমরা। রাত ৯টার দিকে গুলশান থেকে মিরপুরে অবস্থিত বিসিবি কার্যালয়ে পৌঁছান তামিম ইকবাল। এরপর একে একে ভেতরে গেছেন সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, ইমরুল কায়েসরা। সেখানে আগে থেকেই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের নেতৃত্বে উপস্থিত আছেন অন্যান্য পরিচালকরা।
এর আগে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত শেষে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন যখন অপেক্ষায় ক্রিকেটারদের। ঠিক তখনই গুলশানের এক হোটেলে এগারো দফা দাবির সঙ্গে আরও দুটি-মোট ১৩ দফা দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে চিঠি দিয়েছে আন্দোলনরত দেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা।
মিরপুরে জাতীয় ক্রিকেট একাডেমি মাঠে গত সোমবার প্রায় ৬০ জন ক্রিকেটারকে সঙ্গে নিয়ে ধর্মঘটের ঘোষণা দেন সাকিব আল হাসান। এর প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার এক সুদীর্ঘ সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের এই আন্দোলকে বিশেষ মহলের ষড়যন্ত্র, দেশের ক্রিকেটকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত বলে মন্তব্য করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।
তারই জবাবে বুধবার গুলশানের একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের মুখপাত্র হিসেবে ব্যারিস্টার মুস্তাফিজ রহমান দাবিগুলো তুলে ধরেন।

ঘরোয়া ক্রিকেটে পারিশ্রমিক বাড়ানো, ক্রিকেটারদের প্রতি বোর্ডের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানো সহ মোট ১১টি দাবি জানিয়েছিল তারা। যোগ হওয়া দুটি দাবির একটি হলো বোর্ডের রাজস্বের ভাগ দিতে হবে ক্রিকেটারদের এবং নারী ক্রিকেট দলকেও দিতে হবে ন্যায্য ভাগ। তবে এখনই কোনো আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না জানিয়ে মুন্তাফিজ জানান, বোর্ডের সঙ্গে বসতে প্রস্তুত ক্রিকেটাররা।
সাকিব নিজেও ইঙ্গিত দিয়েছিলেন আলোচনায় বসার। গুলশানের সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘সিদ্ধান্ত নিলে সবাই মিলেই নিতে হবে। সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিতেই দেড় দিন সময় নিয়েছি আমরা। আমরা অবশ্যই যাবো (বিসিবিতে)।’