মিয়ানমারে এক মাসে ৬ হাজার ৭০০ রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়েছে। ডক্টরস উইদাউট বর্ডারের এক জরিপে এমন চিত্র উঠে এসেছে।

জরিপে দেখা গেছে গত ২৫ আগস্ট থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে অন্তত ছয় হাজার ৭০০ জন রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক এই সংস্থাটি সম্প্রতি বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলে এই জরিপ প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে।

সংস্থাটির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত জরিপে বলা হয়, নিহতদের মধ্যে অন্তত ১,০০০ শিশু রয়েছে, যাদের বয়স পাঁচ বছরের নিচে।

ডক্টরস উইদাউট বর্ডার এর মেডিকেল ডিরেক্টর ডা. সিডনি অং বলেন, মিয়ানমারে সংঘাতের শিকার হয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আমরা দেখা করে কথা বলেছি। গত আগস্টের শেষ সপ্তাহে শুরু হওয়া মিয়ানমার সেনাবাহিনী পরিচালিত অভিযানে অনেকেই তাদের পরিবারের সদস্যদের হারিয়েছেন।

রাখাইন রাজ্যে সেই অভিযানে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে হাত মেলায় মিয়ানমার পুলিশ ও স্থানীয় মিলিশিয়ারা। এর ফলে, নতুন করে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা প্রাণ বাঁচাতে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

ডা. অং এর মতে, নিহতদের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। কেননা, এমনও হতে পারে অনেকে পালাতে গিয়ে মারা পড়েছেন। তাদের তথ্য আমাদের কাছে নেই। আমরা এমনও খবর পেয়েছি যে, রাত গভীরে ঘরে আগুন দেওয়ায় অনেক পরিবার ঘরের মধ্যেই পুড়ে মারা গেছে।

ডক্টরস উইদাউট বর্ডার তাদের প্রতিবেদনে রোহিঙ্গাদের জোর করে মিয়ানমারে পাঠিয়ে দেওয়া উচিত নয় বলেও মন্তব্য করেছে। এছাড়াও, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা ও অধিকার নিশ্চিত করার ওপরও জোর দিয়েছে সংস্থাটি।